ই-কমার্স বিজনেস | কিভাবে ই-কমার্স বিজনেস শুরু করা যায়

ই-কমার্স বিজনেস

কিভাবে ই-কমার্স বিজনেস শুরু করা যায়

কিভাবে ই-কমার্স বিজনেস শুরু করা যায় ? আপনি চাইলে সহজেই ঘরে বসেই ই-কমার্স বিজনেস করতে পারেন। বর্তমান সময়ে ই-কমার্স একটি জনপ্রিয় ব্যবসা । ই-কমার্স ব্যবসার মাধ্যমে আপনার ভবিষ্যতকে উন্নত করতে পারেন।

তবে আজকে আমি আপনাদেরকে বলবো কিভাবে সহজেই ই-কমার্স বিজনেস করা যায়। এবং কিভাবে শুরু করবেন কিভাবে প্রোডাক্ট সেল করবেন কিভাবে মার্কেটিং করবেন।

প্রথমে আপনাকে ভাবতে হবে যে আপনি কি প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে চান অথবা কোন ধরনের প্রোডাক্ট আপনি সেল করতে চান। তো প্রথমে আপনি ধরুন টি-শার্ট বিজনেস করতে চান ।এজন্য আপনাকে পাইকারি মূল্যে টি-শার্ট ক্রয় করতে হবে।

এরপর কাস্টমারদের কাছে পৌঁছানোর জন্য আপনি ফেসবুকে একটি গ্রুপ করতে পারেন। এবং সেখানে আপনার মেম্বার এড করতে পারেন । এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট গুলো মেম্বারদের কাছে বা কাস্টমারদের দেখাবেন । এরপরে কাস্টমারদের যেটি পছন্দ হয়ে যাবে কাস্টমার সেই পোডাক্ট অর্ডার করবে। তারপর আপনি সেই প্রোডাক্টটি তাদের কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ডেলিভারি দিতে পারেন।

এরপর আপনার বিজনেস যখন আস্তে আস্তে আরও উন্নতির দিকে যাবে তখন আপনি চাইলে একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট ক্রিয়েট করতে পারেন। এই ই-কমার্স ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি সহজে কাস্টমারদের কাছে যেতে পারবেন এবং অনেক অনেক অর্ডার পেতে পারেন এর মাধ্যমে আপনার সাইট জনপ্রিয় হয়ে ওঠবে পাশাপাশী আপণড় বিসনেস ও জনপ্রিয় হয়ে ওঠবে ।

ইকমার্স বিজনেস

আর আপনি চাইলে ফেসবুকে সহজে বুস্ট করার মাধ্যমে আপনার কাস্টমারের কাছে আপনার প্রোডাক্ট পৌঁছাতে পারবেন । এর ফলে আপনার প্রোডাক্ট এর অর্ডার খুব দ্রুত বেড়ে যাবে এবং আপনার বিজনেস খুব জনপ্রিয় হয়ে যাবে আস্তে আস্তে ।

আর আপনি চাইলে আপনার সিটির মধ্যে আপনার প্রোডাক্ট গুলী রিচ করাতে পারেন ফেসবুকে বুস্ট করার মাধ্যমে। এতে সহজে আপনি কুরিয়ারের মাধ্যম ছাড়া আপনি একটি ডেলিভারি ম্যান রেখে সহজে প্রোডাক্টগুলো ডেলিভারি দিতে পারবেন।

এছাড়া আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট টা খুব জনপ্রিয় করতে পারেন এবং আপনি যদি ওয়াডপ্রেস দিয়ে ই-কমার্স ওয়েব বানান তাহলে ওয়ার্ডপ্রেসের multi-vendor প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনি প্রোডাক্ট সেলের পাশাপাশি মার্চেন্ট নিয়োগের মাধ্যমে আপনি প্রোডাক্ট সেল দিতে পারেন । এর মাধ্যমে মার্চেন্ট এর থেকে আপনি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন নিতে পারেন । এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট seller পাশাপাশি আপনি বাইরে সেলার থেকে আপনি কমিশন নিতে পারছেন ।

তো আপনি যদি পর্যায়ক্রমে এভাবে চেষ্টা করতে থাকেন একদিন না একদিন আপনি লাইক দারাজ এভালি এর মত একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করতে পারবেন।. যেকোনো কাজের জন্য আগ্রহ ও চেষ্টা থাকতে হবে তো আপনি যদি এভাবে লেগে থাকেন আশা করি আপনি একদিন সফল হতে পারবেন।

পরিশেষে একটা কথাই বলতে চাই

আপনি যদি বিজনেসে সফল হতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই সৎ হতে হবে । কাস্টমারদের কে স্যাটিস্ফাইড করতে হবে। তাহলে আপনি কাস্টমারদের বিশ্বাস অর্জন করতে পারবেন।এবং সে কাস্টমার থেকে আরো অনেক অর্ডার পেতে পারেন । অর্থাৎ এক কথা কাস্টমারের বিশ্বাস অর্জন করতে হবে এবং আপনাকে প্রচুর পরিমাণ পরিশ্রম করতে হবে এবং লেগে থাকতে হবে।

Post a comment

Previous Post Next Post