ই সার্ভিস বাংলাদেশ | ই সেবা ই পর্চা ইলেকট্রনিক মানি ট্রান্সফার সিস্টেম


ই সার্ভিস বাংলাদেশ | ই সেবা ই পর্চা ইলেকট্রনিক মানি ট্রান্সফার সিস্টেম

ই সার্ভিস বাংলাদেশ সরকারি এবং বেসরকারি অনেক সেবামূলক সংস্থা সার্বক্ষণিকভাবে অথবা সময়ে সময়ে দেশের জনগণকে বিভিন্ন সেবা প্রদান করে থাকে । এ সেবা হতে পারে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াত কিংবা জমির দলিলের নকল সরবরাহ করা । ডিজিটাল পদ্ধতি চালু হওয়ার পূর্বে সকল সেবার ক্ষেত্রে সেবাগ্রহীতা কে অবশ্যই সে তো তার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করতে হতো । কিন্তু ডিজিটাল পদ্ধতিতে সেবাগ্রহীতা নিজ বাড়িতে বসে মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট সেবা গ্রহণ করতে পারে । উদাহরণস্বরূপ ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার জন্য আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট কথা বিবেচনা করা যায় । 

কিছুদিন পূর্বে নিজে অথবা তার কোন লোকের মাধ্যমে ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশনে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে হবে । এর পাশাপাশি অনলাইনে টিকিট কেনা জাই। ও অনলাইনে টিকিটের মূল্য পরিশোধ করা যাই।  ই সেবার এবার প্রধান প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো এটি স্বল্প খরচে সর্বসময় এবং হয়রানিমুক্ত সেবা নিশ্চিত করে । বাংলাদেশের সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভাগ অধিদপ্তরের উদ্যোগে ইতিমধ্যে অনেক ই-সেবা চালু হয়েছে । এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো পাঠ্যপুস্তকে ডিজিটাল সংস্করণ ই-পুর্জি  টেলিমেডিসিন অনলাইনে আয়কর হিসাব করার ক্যালকুলেটর ইত্যাদি । ই সেবা কার্যক্রমের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দেওয়া হল ।

ইলেকট্রনিক মানি ট্রান্সফার সিস্টেম 

বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ইলেকট্রনিক মানি ট্রান্সফার সিস্টেম । এর মাধ্যমে দেশের এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চল নিরাপদে কম খরচের টাকা পাঠানো যায় । এক মিনিটের মধ্যে 50 হাজার টাকা পর্যন্ত উঠানো যায় দেশের প্রায় সকল সেবা পাওয়া যায় ।

ই পর্চা সেবা 

বর্তমানে দেশের সকল জমি রেকর্ডের অনুলিপি অনলাইনে সংগ্রহ করা যায় । পূর্বে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের বড় বড় রেকর্ড থেকে তথ্যসমূহ পূর্বনির্ধারিত পূরণ করে আবেদনকারীকে সরবরাহ করতেন । এ জন্য আবেদনকারীকে যেমন সরাসরি উপস্থিত হতে হতো তেমনি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে কর্মী গতানুগতিক পদ্ধতিতে পর্সা তৈরি করতেন । বর্তমানে এটি ইসেবার আওতায় আসাতে আবেদনকারী দেশ-বিদেশের যেকোন স্থানে নির্দিষ্ট ফি জমা পড়ছে সংগ্রহ করতে পারে ।

ই সেবা

বিভিন্ন সরকারি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত চিকিৎসক মোবাইল ফোনে স্বাস্থ্য পরামর্শ দিয়ে থাকেন । এজন্য দেশের সকল সরকারি হাসপাতালে একটি করে মোবাইল ফোন দেয়া হয়েছে । দেশের যেকোনো নাগরিক এভাবে যেকোন চিকিৎসার পরামর্শ নিতে পারেন । এছাড়া দেশের কয়েকটি হাসপাতালে টেলিমেডিসিন সেবা চালু হয়েছে এর মাধ্যমে রোগী হাসপাতালে না এসে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ পাচ্ছেন ।

রেলওয়ে ই টিকেটিং মোবাইল টিকেটিং 

বাংলাদেশ রেলওয়ে কয়েকটি আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট এখন মোবাইল ফোনের ক্রয় করা যায় । আবার অনলাইনে টিকিটের ব্যবস্থা রয়েছে ফলে নিজের সুবিধামতো সময়ে নির্দিষ্ট গন্তব্যে টিকিট সংগ্রহ করা সম্ভব । অনলাইনে টিকিট ট্রেন স্টেশন এবং অনলাইনে পণ্য প্রদর্শন করে সেখান থেকে নির্দিষ্ট কাউন্টার থেকে সংগ্রহ করতে হয় ।

Post a comment

Previous Post Next Post